Happy Home & Healthcare Prokashoni

সুস্থ ও দীর্ঘজীবন লাভে তুলসী

আইভি খান ওয়াহিদ || 2021-04-17 10:41:49

তুলসীগাছ সাধারণত হিন্দু সম্প্রদায়ের  বাড়িতে বেশি দেখা মেলে । কারণ হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা তুলসীগাছকে পবিত্রতার প্রতীকরুপে মান্য করে । এই তুলসীগাছ বহু ভেসজগুণে গুণান্বিত । আর এজন্যই ছোট্র তুলসীপাতাকে ভেষজের রানী বা মা বলা হয়ে থাকে । অন্যদিকে বিভিন্ন রোগবালাই দূরীকরনে তুলসীপাতার কার্যকারিতার কথাও অনেকেরই জানা । গাছটির বৈজ্ঞানিক  নাম Ocimum tenuiflorum. প্রতিদিন তুলসীপাতা সেবন করার অভ্যাস স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী ।শুধু ওষুধ হিসেবেই নয় , প্রচলিত আছে যে তুলসীপাতা নিয়মিত সেবন করলে সুস্থ ও দীর্ঘজীবন লাভ করা যায় । সবাই চায় জীবনকে, শরীরকে , সুস্থ, সুন্দর এবং নিরাপদ রাখতে। আর তা অর্জন করতে অন্যতম ভূমিকা রাখতে পারে এই তুলসীপাতা ।

  • নিরাময় ক্ষমতা

তুলসী পাতার ঔষধি অনেক গুণাগুণ  আছে। তুলসীপাতা নার্ভ টনিক ও স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিকারী। এটা শ্বাসনালী থেকে সর্দিকাশি দূর করে। তুলসী ক্ষত সারানোর ক্ষমতা আছে। তুলসী পাকস্থলীর শক্তি বৃদ্ধি করে ও অনেক বেশি ঘাম নিঃসৃত হতে সাহায্য করে।

  • জ্বর ভালো করে

তুলসী জীবাণুনাশক, ছত্রাকনাশক ও ব্যাক্টেরিয়ানাশক ক্ষমতা আছে। তাই এটা জ্বর ভালো করতে পারে। তুলসী জীবাণুনাশক, ছত্রাকনাশক ও ব্যাক্টেরিয়ানাশক ক্ষমতা আছে। তাই এটা জ্বর ভালো করতে পারে। সাধারণ জ্বর থেকে ম্যালেরিয়ার জ্বর পর্যন্ত ভালো করতে পারে তুলসীপাতা।

ডায়াবেটিস নিরাময় করে

তুলসীপাতায় প্রচুর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও এসেনশিয়াল অয়েল রয়েছে যা ইউজেনল, মিথাইল ইউজেনল ও ক্যারিওফাইনিল উৎপন্ন করে। এই উপাদানগুলো অগ্নাশয়ের বিটাসেলকে কাজ করতে সাহায্য করে ( বিটাসেল উপাদানগুলো জমা রাখে ও নিঃসৃত করে )। যার ফলে ইনসুলিন এর সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি পায়। এতে ব্লাডসুগার কমে এবং ডায়াবেটিস ভালো হয়।

  • কিডনির পাথর দূর করে

রক্তের ইউরিক এসিড-এর লেভেলকে কমতে সাহায্য করে এবং কিডনিকে পরিস্কার করে তুলসীপাতা। তুলসীর অ্যাসিটিক এসিড এবং এসেনশিয়াল অয়েল এর উপাদান গুলো কিডনির পাথর ভাঙতে সাহায্য করে ও ব্যথা কমায়। কিডনির পাথর দূর করার জন্য প্রতিদিন তুলসী পাতার রসের সাথে মধু মিশিয়ে খেতে হবে। এভাবে নিয়মিত ৬ মাস খেলে কিডনির পাথর দূর হবে।

  • ক্যান্সার নিরাময় করে

তুলসীর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট ও অ্যান্টি- কারসেনোজেনিক উপাদান ব্রেস্ট ক্যান্সার ও ওরাল ক্যান্সার এর বৃদ্ধিকে বন্ধ করতে পারে। কারণ এর উপাদানগুলো টিউমারের মধ্যে রক্ত চলাচল বন্ধ করে দেয়। উপকার পেতে প্রতিদিন তুলসীর রস খান।

  • শিশুদের বিভিন্ন অসুখ যেমন- ঠান্ডা,জ্বর, ডায়রিয়া,বমি ইত্যাদি ভালো করে। শিশুদের চিকেনপক্সের দাগ যদি না যায় তাহলে তুলসীর রসের সাথে জাফরান মিশিয়ে ব্যবহার করলে দাগ দূর হবে।
  • তুলসীর স্ট্রেস কমানোর ক্ষমতা আছে।সুস্থ মানুষও প্রতিদিন ১২ টি তুলসীপাতা চিবালে স্ট্রেসমুক্ত থাকতে পারবেন।
  • মাথাব্যথা ভালো করতে পারে। এর জন্য চন্দনের পেস্ট এর সাথে তুলসীপাতা বাটা মিশিয়ে কপালে লাগালে মাথাব্যথা ভালো হবে।
  • পোকায় কামড় দিলে তুলসীর রস ব্যবহারে ব্যথা দূর হয়।
  • তুলসী পাতা রক্ত পরিস্কার করে, কোলেস্টেরল কমায়।
  • তুলসী পাতা মুখের আলসার ভালো করতে পারে।
  • ওজন কমাতে সাহায্য করে।
  • দাঁতের জন্য ভালো।

 

Designed & Developed by TechSolutions BD