Happy Home & Healthcare Prokashoni

টাইফয়েডের লক্ষণ

আইভি খান ওয়াহিদ || 2019-12-10 17:00:27

সাধারণত টাইফয়েডের জীবাণু সংক্রমণের ৬ থেকে ৩০ দিনের মধ্যেই এ রোগের লক্ষণ প্রকাশ পায়্। প্রথম সপ্তাহে শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্বির সাথে সাথে মাথা ব্যথা, কাশি, অস্বস্তিকর অনুভূতি দেখা যায়। অনেক ক্ষেত্রে রোগীর নাক দিযে রক্ত পড়তে পারে। দ্বিতীয় সপ্তাহে ১০৩-১০৪ ডিগ্রী ফারেনহাইট পর্যন্ত জ্বর থাকতে পারে। এর সাথে অস্বাভাবিক ধীর নারীর স্পন্দন ও হৃদস্পন্দন পাওয়া যেতে পারে। বুকে লালচে গোলাপি দাগ দেখা যায়। রোগী মানুসিকভাবে দ্বিধান্বিত থাকতে পারে। এ কারণে এ জ্বরকে নার্ভাস ফিভারও বলা হয়ে থাকে। এছাড়াও পেটে প্রদাহসহ পেট ফাঁপা এবং ডায়রিয়ায়ও আক্রান্ত হতে দেখা যায়।

টাইফয়েড প্রতিরোধের উপায়

কথায় আছে  Prevention is better then Cure. আধুনিক চিকিৎসাব্যবস্থাতেও প্রতিকার নয় বরং প্রতিরোধের দিকেই বেশি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। টাইফযেড প্রতিরোধে যে সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা যেতে পারে তা হল-

•              ভালোভাবে হাত ধোয়ার অভ্যাস করা।

•              নিরাপদ ও বিশুদ্ব পানি পান করা।

•              স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা ব্যবহার করা।

•              কাঁচা বা অপরিস্কার শাক-সবজি ও ফলমুল গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকে।

•              খাবার গরম করে খাওয়া।

•              টাইফয়েড ভ্যাক্সিন গ্রহণ করা। এতে প্রায় ৩ বছরের মত সুরক্ষা পাওয়া যায়।

Designed & Developed by TechSolutions BD